Labels

শিশুদিবসের তাৎপর্য | Bangla Article by Anita Paul

 

শিশুদিবসের তাৎপর্য 

প্রতিবছরই ১৪ই  নভেম্বর দিনটি ভারতবর্ষে 'শিশু দিবস' হিসেবে পালন করা হয়। এই দিনটি ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরুর জন্মদিন। রাজনৈতিক এবং প্রশাসনিক ব্যক্তিত্বের বাইরেও তিনি যে একজন অত্যন্ত শিশুবৎসল মানুষ ছিলেন একথা সর্বজনবিদিত। শিশুদের প্রতি তাঁর ভালোবাসা ছিল অপরিসীম। আর তাই তিনি 'চাচা নেহেরু' নামেও পরিচিত ছিলেন। ১৪ই নভেম্বর দিনটি প্রতিবছরই নানা শিক্ষানুষ্ঠান কিংবা সংস্থায় সুষ্ঠুভাবে পালিত হয়। কিন্তু শুধুমাত্র আনুষ্ঠানিক পালনের মাধ্যমেই এই দিনটির গুরুত্ব শেষ হয়ে যায় না। বরং শিশুদিবসের তাৎপর্য আমাদের প্রতিটি সচেতন নাগরিকের মর্মে মর্মে উপলব্ধি করার প্রয়োজন আছে বৈকি।

              শিশু-- আসলে একটি ছোট্ট চারা গাছের মতো। সে এই পৃথিবীতে রোপিত হয় ঠিকই, কিন্তু তার গোড়ায় জলসিঞ্চনের কাজ আমাদের প্রত্যেকের। বিশেষভাবে শিশুর পিতা-মাতা এবং শিক্ষকদের। শিশুর ছোটো থেকে বড়ো হওয়ার সবরকম অভিজ্ঞতায় রঙ ঢেলে দেওয়ার কাজ যতটা তাদের পিতা-মাতার ততটাই আমাদের মতো শিক্ষকদের। শিশুরা সর্বদাই অনুকরণপ্রিয়। আর তাই যে বিষয়টি আমাদের প্রতিনিয়ত ভাবা দরকার তা হলো শিশুরা কিন্তু তাদের আদর্শ হিসেবে পিতা-মাতার ঠিক পরেই শিক্ষকদের স্থান দেয়। তাই শিক্ষকের আচার-আচরণ, জীবনাদর্শ থেকে শিশুরা যাতে প্রভাবিত হয় এবং সুপথে জীবন চালনা করতে পারে এটাই কাম্য। আজকের এই ইঁদুর দৌড়ের পৃথিবীতে একটি শিশুকে সঠিকভাবে পরিচর্যা করা খুব কঠিন কাজ। কেননা পিঠে ব্যাগভর্তি বই আর মগজে সীমাহীন চাপের ভারে ন্যুব্জ শিশুটি আজ বড়োই ক্লান্ত। একটি খোলা মাঠ,একটি খোলা আকাশ - যেন তাদের জন্য অপেক্ষারত। কিন্তু আজকের শিশুর হারিয়ে গেছে তার শৈশবটাই। বিকেল গুলো মুখ লুকিয়েছে টিউশন মাস্টারের ক্লাসঘরে। সন্ধ্যাগুলো ঝিমোয় হোমওয়ার্ক আর ক্লান্তিভরা চোখে। তবুও এই হারানো শৈশবকে বুকে নিয়েই তাদেরকে আমাদের এগিয়ে দিতে হবে নির্দিষ্ট পথে। একজন শিক্ষক যেমন একটি জাতির মেরুদন্ড তেমনি একটি শিশু হলো জাতির ভবিষ্যৎ । এরাই একদিন বিশ্বজয়ী মানব হয়ে উঠবে, এদের মধ্যেই নিহিত রয়েছে ভবিষ্যতের সম্ভাবনাময় বীজ। 

           কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য বলেছেন , "চলে যাব /তবু আজ যতক্ষণ দেহে আছে প্রাণ/ প্রাণপণে পৃথিবীর সরাব জঞ্জাল/ এ বিশ্বকে এ শিশুর বাসযোগ্য করে যাব আমি /নবজাতকের কাছে এ আমার দৃঢ় অঙ্গীকার "। ঠিক এই জঞ্জাল অপসারণ করার কাজটাই আসলে আমাদের। দিনশেষে যদি একটি নির্মল নিষ্কলঙ্ক পৃথিবী আমরা রেখে যেতে পারি শিশুদের জন্য, সেটাই হবে আমাদের দেওয়া শিশুদের সর্বশ্রেষ্ঠ উপহার।


******************************

অনিতা পাল 

প্রধান শিক্ষয়িত্ৰী 

আমিনগাঁও বেঙ্গলি প্রাথমিক বিদ্যালয় 

শিক্ষাখন্ড - কররা

Post a Comment

0 Comments